সাম্প্রতিক পোস্ট শিরোনাম

বিস্তারিত

ল্যাপটপ ব্যবহারের টিপস:

26 Sep  Tags:  প্রবন্ধ

 

কিছু নিয়ম মেনে চললে ল্যাপটপের পারফরমেন্স ভালো হয়।

—ব্যাটারি দিয়ে ল্যাপটপ চালানো না লাগলেও ২/৩ সপ্তাহে মাঝে মাঝে ব্যাটারি থেকে চালাতে হবে, নতুবা ব্যাটারি আয়ু কমে যাবে।

—ব্যাটারিতে ল্যাপটপ চালানোর সময় স্ক্রিনের ব্রাইটনেস কমিয়ে দিন।

—মাঝে মাঝে ব্যাটারির কানেক্টর লাইন পরিষ্কার করুন।

—ভালো মানের এন্টিভাইরাস ব্যবহার করুন।

—দরকারি ছাড়া অন্য উইন্ডোগুলো মিনিমাইজ করে রাখুন।

—হার্ডডিস্ক থেকে মুভি-গান প্লে করুন, কারণ সিডি/ডিভিডি র‌্যাম অনেক বেশি পাওয়ার নেয়।

—এয়ার ভেন্টের পথ খোলা রাখুন, সহজে বাতাস চলাচল করে এমনভাবে ল্যাপটপ পজিশনিং করুন, সরাসরি সূর্যের আলোতে রাখবেন না।

—শাট ডাউনের পরিবর্তে হাইবারনেট অপশন ইউজ করুন।

—ব্লু-টুথ ও ওয়াই-ফাই কানেকশন বন্ধ রাখুন।

—হার্ডডিস্ক ও সিপিইউ-এর মেইনটেন্যান্সে কোনো কাজ করবেন না।

—অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রামগুলো বন্ধ করুন।

—মাঝে মাঝে মেমোরি ক্লিনের জন্য Ram Cleaner, Ram Optimi“er, Mem Monster, Free Up Ram, Super Ram নিয়মমাফিক ডিফ্রাগমেন্ট করুন।

—আপাতত দরকার নেই এমন প্রোগ্রাম আনইনস্টল করুন।

— আমরা সাধারণত যাই ডিলিট করি তাই রিসাইকেল বিনে জমা হয় যা অনেক জায়গা নষ্ট করে তাই রিসাইকেল বিন থেকে অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো ডিলিট করে ফেলুন।

— ল্যাপটপ ডেস্কটপের মতো একটানা ব্যবহার করা ঠিক নয়। বেশ কয়েক ঘণ্টা ব্যবহার করার পর ল্যাপটপ কিছু সময় বন্ধ রাখা উচিত।

—ল্যাপটপ এর উপর ময়লা পরলে তা পরিষ্কার করা যেই কাজটা আমরা অনেকেই করি না। আর অবশ্যই সঠিক পরিস্কারক দ্রব্য ব্যবহার করা

—ল্যাপটপের কি বোর্ড ও মাউস এর পরিবর্তে এক্সটারনাল কি বোর্ড ও মাউস ব্যবহার করা। এতে করে ল্যাপটপের কিবোর্ড এবং মাউস প্যাড ভাল থাকবে দীর্ঘ দিন।

উচিত।

— ল্যাপটপে বেশি গ্রাফিক্সের গেমস না খেলা, এতে করে ল্যাপটপ খুবই উত্তপ্ত হয়ে যায় যা ভেতরের অন্যান্য যন্ত্রপাতির জন্য ক্ষতিকারক।

 —ল্যাপটপে যথা সম্ভব ছোট সাইজের সফটওয়্যার ব্যবহার করা উচিত।

—ল্যাপটপ য়থা সম্ভব কম সময়ের জন্য চালানো উচিৎ।

—ঘরে বা বাইরে বিদ্যুত্ ব্যবহারের সুবিধা আছে এমন স্থানে সরাসরি বিদ্যুত্ ব্যবহারের মাধ্যমে ল্যাপটপ চালান। ল্যাপটপের ব্যাটারির একটি —নির্দিষ্ট আয়ু আছে। একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক বার চার্জ হওয়ার পর এই ব্যাটারিটি নষ্ট অর্থাত্ ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে যায়।

—ল্যাপটপের এয়ার ভেন্টটি নিয়মিত পরিষ্কার করুন। কারণ এয়ার ভেন্ট বন্ধ হয়ে গেলে প্রচুর তাপ উত্পন্ন হবে, যা ল্যাপটপের জন্য —ক্ষতিকর। খাবার ও পানীয় থেকে ল্যাপটপ দূরে রাখুন। না হলে অসাবধানতাবশত ল্যাপটপের ওপর পানি পড়ে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। 

— যদি পারেন প্রতি ব্যাবহারের পর ল্যাপটপের ব্যাটারি খুলে রাখুন। এবং অবশ্যই প্রতি দু-তিন মাস অন্তর অন্তর ল্যাপটপের ব্যাটারি একটি কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করুন। এটি ব্যাটারি থেকে পাওয়ার ট্রান্সফার কে অনেক বেশী কার্যক্ষম রাখে।

—ল্যাপটপের চার্জ বাঁচানোর জন্য “হাইবারনেশন” মোড “স্ট্যান্ডবাই” মোড হতে অনেক বেশী কার্যকরী। উল্লেখিত দুই মোড এই কাজ যে পর্যন্ত সংরক্ষন করা হয়েছিল ল্যাপটপ চালু করলে সেখান থেকেই কাজ পুনরায় শুরু করতে পারবেন। তাই “হাইবারনেশন” (Hibernation) মোড এ রাখাই শ্রেয়।

—ল্যাপটপের ইউএসবি পোর্টে প্রয়োজন ব্যতীত এক্সটারনাল ডিভাইস লাগিয়ে রাখবেন না। এক্সটারনাল যে কোন ডিভাইস লাগিয়ে রাখলে তা প্রচুর চার্জ কনজিউম করে, তাই কাজ শেষ হলেই এক্সটারনাল ডিভাইস খুলে ফেলুন।

 —ব্যাকগ্রাউন্ডে রানিং প্রোগ্রাম গুলো CPU এর উপর অতিরিক্ত লোড সৃষ্টি করে, ফলে ব্যাটারি চার্জ ও অনেক ব্যয় হয়। যখন ব্যাটারি মোডে আছেন, তখন যে ব্যাকগ্রাউন্ড প্রোগ্রামগুলো অত্যন্ত প্রয়োজন নয় সেগুলো শাট ডাউন করে দিন।

—এটি ৭ নাম্বার পয়েন্টের সাথে সম্পর্কিত। ব্যাটারি মোডে থাকলে ল্যাপটপে মাল্টিটাস্কিং করবেন না, কেননা তা CPU র উপর অপ্রয়োজনীয় চাপ তৈরি করে চার্জ ব্যয় করে।

 

User Comments


Add Your Comments


Graveter Image

Name User

April 12