সাম্প্রতিক পোস্ট

মুসলমান একটি পবিত্র নাম!!!!

06 সেপ্টেম্বর  ট্যাগ:  প্রবন্ধ

 

একটা গল্প দিয়ে শুরু করলাম, এক বুড়ির খেজুরের রসের পায়েস খাওয়ার খুব সখ ছিল। অনেক কষ্ট করে একদিন সে খেজুরের রসের পায়েস পাক করলো। বুড়ির বাড়ির পাশে একটা বানর ছিল। বানর এসে বুড়ির সখের পায়েস খেয়ে গেল, আর যাওয়ার সময় একটু পায়েস বুড়ির ছাগলের মুখে লাগিয়ে দিয়ে গেল। বুড়ি এসে পেটন ছাগলকেই দিলো কারণ; পায়েস ত ছাগলের মুখেই লেগে ছিল! আসল ঘটনা আশা করি জ্ঞানীরা সহজেই বুঝতে পেরেছে।

 

১৭শ খৃস্টাব্দে ইংরেজরা ভারত বর্ষে  আগমণ করে। ১৭১২ খৃঃ বাংলার সুবেদার আজীমুদ্দীনের কাছ থেকে  সুতানুটি, গোবিন্দপুর, এবং কলকাতা নামক গ্রাম খরীদ করে। ১৭৫৭ সালে পলশী যুদ্ধ হয়, মির জাফরের কারণে বাংলার নবাব সিরাজ উদ দৌলা পরাজিত হয়। এদের দখলদারী শুরু হল, ১৭৫৭ সালে। আর ১৮৫৭ সালে দিল্লীর সর্বশেষ মুসলিম সম্রাট বাহাদুর  শাহকে পরাজিত করে ইংরেজরা ভারত বর্ষে তাদের পূর্ণ রাজত্ব কায়েম করে। সার কথা, ইংরেজদের ভারত বর্ষ দখল করতে সময় লাগে ১০০ বছর। (১৭৫৭ থেকে ১৮৫৭) এরপর অনেক কথা......। ১৫ আগস্ট ১৯৪৭ ভারত ...

মন্তব্য: 0  |  বিস্তারিত পড়ুন

 


নারী যখন ফেছবুকে .........।

02 সেপ্টেম্বর  ট্যাগ:  প্রবন্ধ

 

........তাদের জন্যে যারা আখেরাতে বিশ্বাসী-

 

ইসলামই একমাত্র ধর্ম যেখানে অশ্লীলতা ও বেহায়াপনার কোন স্থান নেই। ইসলাম ধর্মে রয়েছে কঠোর পর্দার ব্যবস্থা, আর এপর্দাই হচ্ছে, অশ্লীলতা ও বেহায়াপনা রোধের একমাত্র হাতিয়ার। মহান আল্লাহ পাক এই “ঐশী পবিত্র বিধান” দ্বারা ইসলাম কে করে তুলেছেন অনন্য, আর এর মাধ্যমে তিনি নারীদের দিয়েছেন সীমাহীন মান-মর্যাদা।

১)পর্দার বিধান যেখানেই লঙ্ঘিত, সেখানে অবাধে প্রবেশ করে অশ্লীলতা ও বেহায়াপনা; আর এ হাতীয়ার দ্বারাই শয়তান মানুষকে

কাবু করে ফেলে, করে তুলে চরিত্রহীন। ফলে মানুষ আস্তে আস্তে হয়ে উঠে আল্লাহ পাকের অবাধ্য। তাই আল্লাহ পাক পর্দার মাধ্যমে অশ্লীলতা, বেহায়া ও নগ্নতার দার চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছেন।

২)অশ্লীলতা, নগ্নতা ও বেহায়াপনা সাধারণত নারীদের  মাধ্যমেই প্রচার-প্রসার ঘটে থাকে, তাই নারীকে আল্লাহ পাক পর্দায় থাকার আদেশ

দিয়েছেন।এ ব্যাপারে পবিত্র কোরআন মাজীদে সাতটি জলন্ত আয়াত ও হাদীস গ্রন্থে প্রায় আশি খানা সহীহ হাদীস রয়েছে।

৩)মহান আল্লাহ পাক নারীর ইজ্জত ও আবরুর প্রতি এতটাই গুরুত্ব দিয়েছেন যে, তাদের আওয়াজ পর্যন্ত পর্দার অধীনে করে দিয়েছেন,

     এমনকি নারীর ছায়া পর্যন্ত দেখার অনুমতি ...

মন্তব্য: 0  |  বিস্তারিত পড়ুন

 


যৌবনে মানুষ ও পশু

01 সেপ্টেম্বর  ট্যাগ:  প্রবন্ধ

  মানুষ সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ কথাটির মর্ম আমাদের অনেকেরই অজানা। তাই এ বিষয়ে আমাদের পরিস্কার একটা ধারণা থাকা চাই। মানুষ হিসাবে সকল বনী আদমই সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ হওয়ার দাবীদার। মহান আল্লাহ পাক সকল মানুষকে সকল সৃষ্টিকুলের মধ্যে সুন্দরতর অবয়বে সৃষ্টি করেছেন। আল্লামা ইবনে আরাবী বলেন:আল্লাহর সৃষ্ট বস্তুর  মধ্যে  মানুষ অপেক্ষা  সুন্দর  কেউ নেই। কেননা, আল্লাাহ তালা তাকে জ্ঞানী, শক্তিবান, বক্তা, শ্রোতা, দ্রষ্টা, কুশলী এবং প্রজ্ঞাবান  করেছেন। এগুণাবলীগুলো আমরা আর কোন সৃষ্ট মাখলুকের মধ্যে লক্ষ্য করি না। তাই মানুষ নিজ গুণাবলীতে সতন্ত্র। যেমন, মানুষের অবয়বকে আল্লাহ পাক সুন্দর করেছেন পোষাকের মাধ্যমে। সৃষ্ট জীবের মধ্যে শুধু মানুষই একমাত্র প্রাণী যাদের কে মহান আল্লাহ পাক নিজেদের লজ্জাস্থান ঢেকে রাখার ক্ষমতা দান করেছেন এবং এর মাধ্যমে আল্লাহ পাক মানুষকে করেছেন সম্মানী । সৃষ্টজীবের মধ্যে মানুষই একমাত্র প্রাণী যারা নিজেদের লজ্জাস্থান আবৃত করতে জানে, এর মাধ্যমে আল্লাহ পাক মানুষকে করেছেন সম্মানী । আল্লাহ পাক মানুষকে যে দুইখানা হাত দিয়েছেন এর দ্বারা সে যাবতীয় কর্মকান্ড সুশৃংখল ভাবে পরিচালিত ...

মন্তব্য: 0  |  বিস্তারিত পড়ুন